৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
মঙ্গলবার | সকাল ৬:২৮
বৃষ্টির পানি জমে মুন্সিগঞ্জে অালু ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি
খবরটি শেয়ার করুন:

অতিবৃষ্টিতে মুন্সিগঞ্জে সবচেয়ে বেশি ক্ষতে হয়েছে চর এলাকার আলু ক্ষেতে। অপেক্ষাকৃত নিচু এই জমি সমান নয়।তাই সহজে সেখানে বৃষ্টির পানি আটকে গেছে। রবিবার (১২ মার্চ) বৃষ্টি না হওয়ায় কৃষকরা মাঠে নেমে ক্ষেত থেকে বৃষ্টির পানি সরাতে ব্যস্ত ছিল। তবে,এতে ক্ষতির হাত থেকে রেহাই পাওয়া যাবে না। কৃষকরা বলছেন, কমপক্ষে চার ভাগের এক ভাগ আলু পচে যাবে। এতে করে লোকসান গুণতে হবে।

জেলা কৃষি সম্পসারণ অধিদফতরের সূত্রমতে, এবার ১৩ লাখ ৭৫ হাজার মেট্রিকটন উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে জেলার প্রায় ৩৯ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে আলু উত্তোলিত হয়েছে প্রায় ৯ হাজার ২৫০ হেক্টর জমির। বাকি ৩০ হাজার ৫০ হেক্টর জমির আলু এখনও উত্তোলন করা হয়নি। সে হিসাবে মোট আবাদের চার ভাগের তিন ভাগ জমির আলু উত্তোলন বাকি আছে।

প্রায় ৭ একর জমিতে আলু চাষ করেছেন টঙ্গিবাড়ির বালিগাওয়ের আরিফ হোসেন। তিনি জানান, বৃষ্টির কারণে সব কৃষকেরই কমবেশি ক্ষতি হবে। তবে যাদের জমি অপেক্ষাকৃত নিচু, যেখানে পানি আটকে গেছে তাদের আলু প্রায় সব পচে যাবে। আবার যারা সুদে টাকা নিয়ে অথবা আলু অগ্রীম বিক্রি করে টাকা এনে আলু চাষ করেছে তারা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তার প্রায় চার ভাগের এক ভাগ আলু পচে যাবে।

লৌহজং উপজেলার ক্ষিদিরপাড়ার কৃষক মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, ১৯৮৪, ১৯৮৯ ও ১৯৯৪ সালের পর এইবার বৃষ্টির কারণে আলুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষিদিরপাড়া প্রায় ১ হাজার ৬ হেক্টর জমিতে আলু চাষ করা হয়েছে যার প্রায় সবটাই এখন পানির নিচে। পানি সরিয়ে ফসল রক্ষা করতে পারবে বলে আশা করছেন না কৃষকরা।

জেলা কৃষি কর্মকর্তা হুমায়ূন কবীর বলেন,‘জেলার প্রায় ৭৮ হাজার কৃষক প্রত্যক্ষভাবে আলু চাষের সঙ্গে জড়িত। অতিবৃষ্টির কারণে সবাই কমবেশি ক্ষতির মুখে পড়বে। তবে আমাদের কাছে যে খবর আছে তাতে লৌহজং উপজেলার ক্ষিদিরপাড়া ইউনিয়নের আলু চাষিরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেখানে পানি আটকে গেছে এবং সরানোর কোনও উপায় নেই। তবে কৃষকদের প্রতি আমাদের পরামর্শ, যতো দ্রুত সম্ভব আলু উঠিয়ে ফেলা।’
আলুচাষিরা বলছেন এই অবস্থায় আলু তুলে ফেললেও তা হিমাগারে সংরক্ষণ করা যাবে না। যদি বৃষ্টিভেজা আলু সংরক্ষণ করা হয় তাহলে পুরো আলুই পচে যাবে। এ ব্যাপারে কৃষি কর্মকর্তা হুমায়ূন কবীর বলেন, ‘আলু সংরক্ষণ করা যাবে কিনা তা এখনই বলা যাবে না। মাঠ থেকে আলু তোলার পর আলুর অবস্থা বুঝে সেটা বলা যাবে।’

error: দুঃখিত!