৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
শনিবার | রাত ১:১০
মুন্সিগঞ্জ: ত্রাণ নিয়ে ভাড়াটিয়াদের অভিযোগ জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের দিকে
খবরটি শেয়ার করুন:
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on email

মুন্সিগঞ্জ, ৮ জুলাই, ২০২১, শিহাব আহমেদ (আমার বিক্রমপুর)

ভাড়ায় থাকেন মুন্সিগঞ্জে-কিন্তু মুন্সিগঞ্জের স্থায়ী বাসিন্দা না। জাতীয় পরিচয়পত্র যেটা আছে সেটাও মুন্সিগঞ্জের না। তাই ত্রাণ কার্যক্রমের বাইরে থেকে যাচ্ছে বিশাল একটি অংশ।

এ নিয়ে ভাড়াটিয়াদের অভিযোগ স্থানীয় রাজনীতিক, জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের দিকে।

মুন্সিগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ঘুড়ে বিভিন্ন পেশার সাথে জড়িত একাধিক নারী-পুরুষের সাথে কথা বলে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মুন্সিগঞ্জ পৌর এলাকার একজন ভাড়াটিয়া যিনি নাম প্রকাশ করতে চান না তিনি বলছেন, এলাকার কাউন্সিলর নাম তালিকা করেন তবে তার নাম গতবারও ত্রাণ কার্যক্রমে আসে নি। এবারও তিনি আশঙ্কা করছেন ভাড়াটিয়া হওয়ায় তিনি কোন ত্রাণ পাবেন না। অথচ তার ত্রাণ প্রয়োজন। করোনায় তিনি বিপর্যস্ত।

মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার সচিব আবুল কালাম মোহাম্মদ বজলুর রশীদ ‘আমার বিক্রমপুর’ কে বলছেন, কাদের ত্রাণ দেয়া হবে বা কাদের ত্রাণ প্রয়োজন সে তালিকা করেন কাউন্সিলরগণ ও মেয়র। সেখানে ভাড়াটিয়াদের নাম আসে কি না এ বিষয়ে আমি বলতে পারছি না। তারাই ভালো জানেন।

আরও পড়তে পারেন: মুন্সিগঞ্জ: ‘ব্যক্তিগত উদ্যোগে’ ত্রাণ বিতরণে আগ্রহ নেই আ. লীগ নেতাদের

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের দশকানি এলাকার আলি আকবরের বাড়ির ভাড়াটিয়া ময়না বেগম বলছেন, আমি এখানে ভাড়া থাকি ৩ বছর। আমার দেশের বাড়ি রংপুর। আমার স্বামী মুন্সিগঞ্জে বিভিন্ন কাজ করে। বর্তমানে তার কাজ বন্ধ। গতবার লকডাউনেও কঠিন সমস্যায় পড়েছিলাম। কিন্তু আমরা ভাড়া থাকি বলে কেউ ত্রাণ দিতে চায় না। স্থানীয় যারা মেম্বার-চেয়ারম্যান আছেন তারা ভাড়াটিয়া বলে এই বাড়িতেই ঢোকেন না।

আরও পড়তে পারেন: মুন্সিগঞ্জ: ক্ষমতার অযুহাতে ত্রাণ বিমুখ বিএনপি

একই ইউনিয়নের আনোয়ার ঢালী বলছেন, ভাড়া থাকি বলে কেউ খোঁজ নেয় না। সাহায্যও দেয় না। থাকি মুন্সিগঞ্জে, ত্রাণ আনতে কি এখন দেশে যাবো? দেশে যে যাবো সেই পরিস্থিতিতিও তো নাই। এলাকার নেতারা ত্রাণ দেয় ৫০ জনরে প্রচার করে ৩০০ জনরে দিছে। মেম্বার-চেয়ারম্যানরা তো চোখে দেখেও দেখে না আমাগো। আর প্রশাসনের লোকজন তো আরও আগে খোঁজখবর রাখে না।

অভিযোগের বিষয়ে স্থানীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সাথে একাধিকবার কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

মুন্সিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) নোমান হোসেন ‘আমার বিক্রমপুর’কে বলছেন, যারা ভাড়াটিয়া তারাও সরকারি ত্রাণ কার্যক্রমের আওতায় আসবেন। এই ক্ষেত্রে স্থানীয় ভোটার হওয়া বা জাতীয় পরিচয়পত্র থাকার বাধ্যবাধকতা নেই।

তিনি উল্লেখ করেন, মানবিক ও খাদ্য সহায়তাসহ জরুরী সেবা প্রদানের লক্ষে মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসন একটি কন্ট্রোল রুম খুলেছে। তিনি বলেন, আমরা সবাইকেই প্রশাসনের মানবিক কর্মসূচির মধ্যে নিয়ে আসবো। কারও যদি খুব বেশি ত্রাণের প্রয়োজন হয়ে থাকে তারা আমাদের (০১৭৯৯৮৩৭৩৯৩) নাম্বারে নাম, ঠিকানা জানিয়ে কলও করতে পারেন।

error: দুঃখিত!