২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সোমবার | ভোর ৫:৩৬
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
পদ্মা সেতুতে আজই জ্বলছে না আলো, কিন্তু কেন?
খবরটি শেয়ার করুন:

মৃুুন্সিগঞ্জ, ০১ জুন, ২০২২, আরাফাত রায়হান সাকিব (আমার বিক্রমপুর)

নানা বাঁধা আর প্রতিকূলতা পেরিয়ে বাংলাদেশের সক্ষমতার প্রতীক স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কাজ শেষ পর্যায়ে। আগামী ২৫জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্ধোধন করার পর সেতুর সড়ক পথ খুলে দেওয়া হবে যান চলাচলের জন্য। এতে কেটে যাবে দেশে দক্ষিণবঙ্গের কোটি মানুষের পদ্মা পারি দেওয়ার যুগযুগান্তের দূর্ভোগ।

উদ্ধোধনকে সামনে রেখে মেগাস্ট্রাকচারে ফিনিশিংয়ের কাজ সম্পন্ন করতে শেষ সময়ে চলছে দিনরাত কর্মযজ্ঞ। মূলসেতু জুড়ে চলছে রোডমার্কিং, ল্যাম্পপোস্টে বিদ্যুৎয়ের ক্যাবল লাইন টানা ও হ্যান্ড রেলিং বসানোর কাজ।

এর মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত সেতুর রোডমার্কিংয়ের কাজ ৫০ শতাংশ ছাড়িয়েছে বলে প্রকৌশলী সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এদিকে মূল সেতুতে বসবে ৪১৫টি ল্যাম্পপোস্ট, এসব ল্যাম্পপোস্টে বিদ্যুৎয়ের ক্যাবল সংযোগের কাজও শেষ পর্যায়ে। সমান তালে চলছে হ্যান্ড রেলিং বসানোর কার্যক্রম। সেতুর দুইপারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ম্যুরাল স্থাপনের কাজ চলছে।

প্রকৌশলীরা বলছে, উদ্বোধনের আগেই ১৫ জুন থেকে ২০ জুনের মধ্যে বাকি থাকা সব কাজ শেষ করত সক্ষম হবেন তারা। এরপরই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সেতু বুঝিয়ে দিবে কতৃপক্ষকে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সেতু আলোকিত করতে ল্যাম্পপোস্ট বিদ্যুৎ সংযোগে ক্যাবল লাইন টানার কাজের অগ্রগতি প্রায় ৯০ভাগ। সেতুর মুন্সিগঞ্জের মাওয়া অংশের কাজ শেষ। জাজিরা অংশে বাকি থাকা কাজও এগিয়ে যাচ্ছে। পহেলা জুন সড়ক বাতি জ্বলবে এমন খবর ছড়িয়ে পড়লেও আগামী ৭দিনের মধ্যেই ক্যাবল লাইন টানার কাজ শেষ করতে সক্ষম হবেন বলে জানিয়েছেন প্রকৌশলীরা।

এরপরই একযোগে সেতুকে আলোকিত করতে পরিক্ষামূলকভাবে জ্বলে উঠবে লাইট গুলো।

পহেলা জুন সড়ক বাতি জ্বলবে এমন খবর ছড়িয়ে পড়লেও আগামী ৭দিনের মধ্যেই ক্যাবল লাইন টানার কাজ শেষ করতে সক্ষম হবেন বলে জানিয়েছেন প্রকৌশলীরা। Photo Credit: latitude-23

মূল সেতুতে ৪১৫টি পাশাপাশি দুই পাড়ের সংযোগ সড়কে বসবে আরো ২শত ল্যাম্পপোস্ট। সংযোগ সড়কের ল্যাম্পপোস্টের ফাউন্ডেশনের কাজ শেষ, অগ্রগতি ৫০ শতাংশ। এসব সড়ক বাতিতে ক্যাবল কানেকশন দেওয়া হচ্ছে।

ল্যাম্পপোষ্ট ক্যাবল টানার কাজ শেষ হলেই মাওয়া অংশে মুন্সিগঞ্জ পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি থেকে কন্ট্রোল রুম পর্যন্ত বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হবে। এদিকে রোড মার্কিং এগোচ্ছে দিনে রাতে। পর্যায়ক্রমে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার পুরো সেতুতে মার্কিং করা হবে। যদিও বৃষ্টির কারনে রোডমার্কিংয়ের কাজ এগোতে সময় লাগছে ।

প্রকৌশলীরা বলছেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পুরো সেতুই মার্কিং করা হবে।

পদ্মা সেতুর সহকারী প্রকৌশলী আহসান উল্লাহ মজুমদার জানান, সবকাজই এগোচ্ছে সমান তালে। দিনরাত কাজ চলছে। রোডমার্কিংয়ের কাজ অর্ধেক শেষ হয়েছে। বৃষ্টি থাকলে রোডমার্কিংয়ের কাজ হয়না, সড়কপথ সুষ্ক থাকলে কাজ চলে। সেতুতে প্রতিটি ল্যাম্পপোস্ট বিদ্যুৎয়ের ক্যাবল লাগানো হচ্ছে। ১সপ্তাহের মধ্যে সে কাজ শেষ হবে। এরপরই পরিক্ষামূলকভাবে লাইট প্রজ্জলিত করা হবে। এছাড়া সড়ক পথে হ্যান্ড রেলিং বসানোর কাজ প্রায় ৪০ শতাংশ এগিয়েছে। ১৫ জুনের মধ্যেই বাকি থাকা সব কাজ শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে।

error: দুঃখিত!