১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বৃহস্পতিবার | দুপুর ১:৩৩
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
পৌর কাউন্সিলর সাগরকে গ্রেপ্তারের দাবিতে আ. লীগের একাংশের সংবাদ সম্মেলন
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২১, সদর প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, প্যানেল মেয়র ও পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাত হোসাইন সাগরকে ‘শীর্ষ সন্ত্রাসী’ আখ্যা দিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে তারই এলাকার আওয়ামী লীগের একটি অংশ। এসময় মামলা দায়ের হলেও পুলিশ এখন পর্যন্ত সাজ্জাতকে গ্রেপ্তার করছে না বলে অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

আজ শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) সকালে মুন্সিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংবাদিক শফিউদ্দিন আহাম্মেদ মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন মুন্সিগঞ্জ শহর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ওয়াহেদুজ্জামান বাবুল।

লিখিত বক্তব্যে আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল দাবি করেন, সাজ্জাত হোসেন সাগর নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে ৯ নং ওয়ার্ডটিকে সন্ত্রাস ও মাদকের অঙ্গরাজ্যে পরিণত করেছেন।

বাবুলের অভিযোগ, সাগরের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, চাঁদাবাজি, আধিপত্য বিস্তার ও নির্যাতনের স্বীকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। তার ছত্রছাত্রায় বিশাল বড় কিশোর গ্যাং রয়েছে। মুন্সীরহাট রিক্সা স্ট্যান্ডে কাউন্সিলর সাগরের ছত্রছায়ায় যানবাহন থেকে চাদাঁ তোলা হচ্ছে। নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন সময় প্রায় অর্ধশত মানুষকে মারধর করে বাড়িতে লুটপাট ও মহিলাদের লাঞ্ছিত করেছে।

এসময় কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেন সাগর দ্বারা নির্যাতিত ব্যাক্তিদের নাম উল্লেখ করেন। তারা হলেন- মামুন দেওয়ান, পাবেল দেওয়ান, হিমেল, মানিক, শাওন, জিশান, সুমন, শরিফুর রহমান শরীফ, মোঃ আল-আমিন, আওলাদ হোসেন, মোঃ নজরুল ইসলাম।

তিনি জানান, গত শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সোয়া ৫টার দিকে মুন্সীরহাট আল-আমিন কমিউনিটি সেন্টারের সামনে চরশীলমান্দি এলাকার বাসীন্দা মামুন দেওয়ানকে পথরোধ করে কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেনের হুকুমে কয়েকজন মিলে মারধরের এক পর্যায়ে মামুনকে হত্যার উদ্দেশ্যে চাপাতি দিয়ে মাথায় আঘাত করে। মামুন গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয়। এ ঘটনায় রোববার (১৯ ডিসেম্বর) বাদী হয়ে মামুনের ভাই পাভেল দেওয়ান কাউন্সিলর সাজ্জাত হোসেন সাগরকে প্রধান আসামী করে ৬ জনের নামে মামলা দায়ের করেন। কিন্তু পুলিশ সাগরকে এখন পর্যন্ত আটক করেনি। উল্টো তারা বাদীর পরিবারকে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী মামুন দেওয়ান অভিযোগ করে বলেন, সাজ্জাত হোসেন সাগর ও তার বাহিনী যে কোন সময় আবার আমার উপর হামলা চালাতে পারে।

কাউন্সিলর সাগরকে আটক না করার অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক জানান, মারধরের ঘটনায় সাগরসহ মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। বাদী পরিবারকে আবারও হুমকি দেয়ার বিষয়ে কোনো অভিযোগ আমরা পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

error: দুঃখিত!