২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বৃহস্পতিবার | বিকাল ৫:১২
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
শ্রীনগরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ইউপি সদস্যসহ আহত ১০
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১৩ আগষ্ট, ২০২০, শ্রীনগর প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুলের কামারগাঁও আল-আমিন মাদ্রাসার প্রিন্সিপালের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে কটুক্তি নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। 

সোমবার (১১ আগস্ট) সন্ধ্যা সারে ৭টার দিকে ইউনিয়নের কামারগাঁও আল-আমিন আলীম মাদ্রাসা চত্বরে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এক পক্ষের ইউপি সদস্য আব্দুস সামাদ তার ভাই ইয়ার আলী ভাতিজা নিঝুম ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম আহত হয়।

অপর পক্ষের আব্দুল মালেক বিল্লাহ, তার স্ত্রী নুর জাহান চার ছেলে বাকি বিল্লাহ, মালুম বিল্লাহ, মাসুদ বিল্লাহ ও নাদিম বিল্লাহ আহন হয়। আহতরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কয়েকদিন আগে কামারগাঁও আল-আমিন আলীম মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মো. জাফর ইকবালকে নিয়ে কটুক্তি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে বিভিন্ন ধরনের স্ট্যাটাস দিয়ে আসছিল একটি কুচক্রীমহল। এ বিষয়ে প্রিন্সিপাল গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুস সামাদকে জানান।

সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে মাসুদ বিল্লাহর কাছে ইউপি সদস্য আব্দুস সামাদ জানতে চাইলে, তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে চলে যায়।

এদিকে ইউপি সদস্য সামাদ ও রফিকুল মাদ্রাসার নতুন ভবনের কাজ দেখভালের জন্য মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে প্রবেশ করেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই মাসুদ বিল্লাহসহ আরো কয়েকজন লাঠি, লোহার রড দিয়ে ইউপি সদস্যের উপর হামলা চালায়। এতে গুরুতর আহত হয় ইউপি সদস্য। আহত অবস্থায় সামাদ মেম্বার চিকিৎসা নিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন। পরে স্থানীয় জন প্রতিনিধির উপড় হামলার প্রতিবাদে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। এতে কয়েক জন আহত হয়।

প্রিন্সিপাল জাফর ইকবালের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, একটি মহল বেশ কিছুদিন যাবত আমার বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে কটুত্তি ও হুমকি প্রদান করে আসছিল। বিষয়টি আমি স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গন্যমান্য ব্যক্তিদের জানাই।

স্থানীয় ভাগ্যাকুল ইউনিয়ন পরিষদের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুস সামাদ বলেন, ফেসইবুকে কটুক্তি করার বিষয়ে জানতে চাইলে মাসুম বিল্লাহ ও তার পিতাসহ অন্য ভাইয়েরা মিলে আমার ওপর প্রথম হামলা চালায়। এতে করে আমিসহ চারজন আহত হই এবং চিকিৎসা নিতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চলে আসি। এই ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করছি।

আব্দুল মালেক বিল্লাহ’র কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ফেইসবুকের ঘটনায় সালাম মেম্বারসহ তারা আমাদের ওপর আগে হামলা চালায়। এতে আমার স্ত্রীসহ পরিবারের ছয়জন আহত হই। এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।

এ ব্যাপারে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞা জানান, উভয় পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

error: দুঃখিত!