৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
সোমবার | বিকাল ৩:০৪
শ্রীনগরে অবৈধভাবে ফসলী জমির মাটি বিক্রি, ট্রলির ওভারলোডিংয়ে রাস্তার ক্ষতি
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১২ জানুয়ারি, ২০২২, শ্রীনগর প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরে একদিকে অবৈধভাবে ফসলী জমির মাটি কেটে বিক্রি করা হচ্ছে। অপরদিকে মাটি ভর্তি অসংখ্য ট্রলির ওভারলোডিংয়ে নষ্ট হচ্ছে গ্রামীন সব রাস্তাঘাট।

উপজেলার শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নের পল্টন বাড়ির সামান্য উত্তর দিকে আড়িয়াল বিলের ওপর বয়ে যাওয়া মরিচ বাড়ির রাস্তার পাশে ফসলী জমি উজার করে মাটি কেনা-বেচা করা হচ্ছে।

শ্যামসিদ্ধি গ্রামের মাটি সিন্ডিকেটের আব্দুল মালেক ও তার ভাই সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল বাছেরের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে। প্রতিদিন সেকভেটর দিয়ে এসব কৃষি জমি কেটে শতশত ট্রলি মাটি বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করা হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, আড়িয়াল বিল এলাকার শ্যামসিদ্ধি গ্রামের জহিরের বাড়ি থেকে মরিচ বাড়ির রাস্তার পুর্ব পাশে শ্রীনগর সদর ইউনিয়ন মৌজায় স্কেভেটর/ভেকু দিয়ে কৃষি জমির মাটি কেটে ট্রলিতে ভরা হচ্ছে। মাটি ভর্তি এসব নিষিদ্ধ ট্রলির ওভারলোডিংয়ে গ্রামীন কাঁচা পাকা সড়কগুলো বেহাল করা হচ্ছে।

এ সময় কয়েকজন ট্রলির চালক বলেন, লৌহজং থেকে ট্রলি নিয়ে মাটি টানার কাজে ভাড়ায় আসছেন। প্রতিদিন ট্রলি প্রতি ৪-৫ হাজার টাকা ভাড়া পাচ্ছেন।

সিরাজুল নামে এক শ্রমিক বলেন, শ্যামসিদ্ধি গ্রামের মাটি ব্যাবসায়ী আব্দুল মালেক ও তার ভাই বাছের মেম্বারের কাজ করছেন। একাজে তিনি দৈনিক মজুরী পান। তিনি ১০/১২ দিন ধরে এখানে মাটি কাটার কাজ করছেন।

আব্দুল মালেকের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি জমির মাটি কিনেছি। ফসলী জমির মাটি কেটে বিক্রি করা ও নিষিদ্ধ ট্রলি দিয়ে গ্রামীন রাস্তাঘাটের ক্ষতিসাধন করা কতটা যুক্তিসংঘত এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনও সদুত্তর দিতে পারেননি।

সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল বাছেরের কাছে জানতে চাইলে তিনি দম্ভ করে বলেন, রাস্তা তো নষ্ট হয় নাই। মাটি কিনেছি তাই বিক্রি করছি।

এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রভাবশালী আব্দুল মালেক ও তার ভাই সাবেক ইউপি মেম্বার আব্দুল বাছেদ আড়িয়াল বিল এলাকার মাটি সিন্ডিকেটের অন্যতম সদস্য। সিন্ডিকেটটি সরকারের নিয়ম নীতিমালা অমান্য করে বিলের শতশত হেক্টর কৃষি জমির মাটি কেটে ফসলী জমি উজার করছে। অবৈধভাবে বিলে মাটি কেটে কৃষি জমির রকম পরিবর্তনের পাশাপাশি যত্রতত্রভাবে মাটি বহনকারী ট্রলি চালিয়ে গ্রামীন  রাস্তাঘাটের ক্ষতিসাধন করছে। এসব অন্যায় কাজে প্রভাবশালী মাটি সিন্ডিকেটটির বিরুদ্ধে ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না।

এ ব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ব্যারিস্টার সজীব আহমেদ জানান, মাটি কেটে রাস্তাঘাট নষ্ট করা যাবে না। খোঁজ খবর নিতে দ্রুত নায়েবকে পাঠাচ্ছি।

error: দুঃখিত!