২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
বুধবার | সন্ধ্যা ৭:৩৬
লৌহজংয়ে শ্রমিক সংকটে জমিতেই ঝড়ে পরছে ধান
খবরটি শেয়ার করুন:

মৃুুন্সিগঞ্জ, ২৫ মে, ২০২২, লৌহজং প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ে শ্রমিক সংকটের কারনে জমিতেই ঝড়ে পড়ছে কৃষকের ঘাম ঝড়ানো স্বপ্নের ধান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম জানান, এবার লৌহজং উপজেলার ১০ টি ইউনিয়নে ৩ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে ইরি ধানের আবাদ করা হয়। এ বছর ঝড় বৃষ্টির সম্মুখীন না হওয়ায় ইরি ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে কিন্তু শ্রমিক সংকটের কারনে জমিতেই ঝড়ে পরছে পাকা ধান।

খিদিরপাড়া গ্রামের কৃষক মো. সোহেল শেখ জানান, এলাকায় শ্রমিক সংকটের কারনে পাকা ধান জমিতেই ঝড়ে পরছে কিছুই করার নেই। আমি সাড়ে ৯ ঘন্ডা জমিতে ধান লাগিয়েছি। জমির কিছু অংশে ঢলের ও বৃষ্ঠির পানি জমেছে। শ্রমিক সংকটের কারনে আমি নিজেই ৪ ঘন্ডা জমির ধান কেটেছি। বাকি ধান জমিতে ঝড়ে পরছে। বৃষ্ঠি আর বাতাসে জমিতে ধান পরে যাওয়ায় আরোও বেশি চিন্তিত হয়ে পরেছি। মঙ্গলবার শ্রমিক আনার জন্য বিভিন্ন এলাকায় গিয়েছি। কোথাও কোন শ্রমিক নেই। দুই জন শ্রমিক পেয়েছি তাদের রোজ ১৪শ’ টাকা করে এবং দুবেলা খাবার সহ একজন শ্রমিকের পিছনে খরচ হয় প্রায় ১৮শ’ টাকার মত। আর বর্তমানে বাজারে নতুন ধানের মন প্রতি মুল্য রয়েছে ৯শ’ টাকা । তাই দেড় মন ধান বিক্রি করে একজন শ্রমিককে পারিশ্রমিক দিয়ে বিদায় দিতে হয়।

উপজেলার গোয়ালীমান্দ্রা এলাকার কৃষক মো, সুরুজ্জামান জানান, শ্রমিকের অভাবে তার ধান জমিতে পড়ে ধানের গ্যারা জালিয়েছে।

এদিকে কৃষি কর্মকর্তা মো. শরীফুল ইসলাম জানান, সহজ উপায় ও অল্প খরচে কৃষকের ধান কাটার জন্য একটি অত্যাধুনিক মেশিন বের করা হয়েছে। কম্বাইন্ড হারবেস্টার নামের এই মেশিনটি অল্প সময়ে কম খরচে খুব দ্রুত ধান কাটতে সক্ষম হয়। এক ঘন্ডা জমির ধান ৬০০ টাকায় কেটে দেয় এই যন্ত্রটি।

কিন্তু সমস্যাও রয়েছে। সব এলাকায় বিলে ও জমিতে রাস্তা না থাকায় এই মেশিনটি খুব একটা কাজে আসছেনা কৃষকের।

error: দুঃখিত!