১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বৃহস্পতিবার | সকাল ১১:০৮
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
মুন্সিগঞ্জে ১২ হাজার টাকার জন্য কৌশলে প্রাণ কেড়ে নিলো বন্ধুর
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১৭ নভেম্বর ২০২৩, নিজস্ব প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় ব্যবসায়ী রাহাফুল খান (১৯) হত্যার ঘটনায় তার বন্ধু সাব্বির হোসেন সরকারকে (২৩) গ্রেপ্তার করেছে গজারিয়া থানা পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃত সাব্বিরের জবানবন্দি অনুযায়ী পুলিশের ভাষ্য, ১২ হাজার টাকা ধার চেয়ে না পাওয়ায় ক্ষোভে কোকের সাথে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে খাওয়ানোর পর বটি দিয়ে কুপিয়ে রাহাফুলকে খু ন করেন সাব্বির।

নিহত ব্যবসায়ী রাহাফুল খান। ছবি: সংগৃহীত।

বুধবার রাতে গজারিয়ার ভবেরচর বাসস্ট্যান্ড বহুমুখী সমবায় সমিতি মার্কেট থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। সাব্বির গজারিয়ার গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের দিদার হোসেন সরকারের ছেলে। বর্তমানে ভবেরচর কলেজ রোড এলাকার জব্বার মাস্টারের বাড়ির ভাড়াটিয়া।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা সোহেব আলী এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, সাব্বিরের কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ১টি বটি, ১টি চাকু ও ঘুমের ঔষধ মিশ্রিত কোকের বোতল উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত সাব্বির পুলিশকে জানায়, নিহত রাহাফুলের সাথে দুই বছর ধরে তার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। ভবেরচর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন সমিতি মার্কেটের ২য় তলায় রাহাফুল দুইটি দোকান নিয়ে ইলেকট্রনিকস পণ্যের ব্যবসা করতেন। সেখানে মাঝেমধ্যে গিয়ে আড্ডাও দিতেন সাব্বির। অন্যদিকে সাব্বির স্থানীয় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। তবে বেশ কয়েকদিন কাজে না যাওয়ায় চাকরি হারান তিনি। এতে অর্থ সঙ্কটে পড়েন সাব্বির। তাই তার বাবার মাধ্যমে রাহাফুলের স্ত্রীকে দিয়ে ১২ হাজার টাকা ধার চান। টাকা না দিলে সাব্বিরের মাঝে রাগ থেকে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।

এরপর গেল ১০ নভেম্বর ফার্মেসি থেকে ১০০ টাকায় ৫টি ঘুমের ঔষধ ও ২৫ টাকায় এক বোতল কোক কিনে সেগুলো মিশিয়ে রাহাফুলকে খুজঁতে থাকেন সাব্বির। ঘটনার একপর্যায়ে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ভবেরচর সমিতি মার্কেটের পেছনে দেখা হয় রাহাফুলের সাথে। এরপর রাহাফুলকে কলেজ রোড এলাকার নিজের ভাড়াটিয়া বাসায় নিয়ে যায় সাব্বির। বাসায় যাওয়ার পর তারা একসাথে সিগারেট খান। এসময় রাহাফুলের কাছে অনেক টাকা দেখে পুনরায় ১২ হাজার টাকা ঋণ দেয়ার জন্য কাকুতি-মিনতি করে অনুরোধ করেন সাব্বির। কিন্তু তাতেও টাকা না দেয়ায় ঘুমের ঔষধ মেশানো কোক কৌশলে রাহাফুলকে খেতে দেন সাব্বির। কোক খেয়ে গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে পড়লে রান্নাঘর থেকে বটি এনে প্রথমে রাহাফুলের মাথায় দুইটি কোপ মারেন সাব্বির। রাহাফুল সজাগ হয়ে গেলে দুইজনের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। এসময় আরও কয়েকটি কোপ মারলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন রাহাফুুল। ঘটনার পর পালিয়ে যান সাব্বির। পুলিশ পরদিন স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে।

গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা সোহেব আলী জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে হত্যার দায় স্বীকার করে মুন্সিগঞ্জ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন গ্রেপ্তারকৃত সাব্বির হোসেন সরকার।

error: দুঃখিত!