১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সোমবার | সকাল ৮:০৮
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
মুন্সিগঞ্জে পুরুষাঙ্গ কে.টে ছেলেকে হ.ত্যা.র ঘটনায় মা-বাবার সা.জা
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১০ মার্চ, ২০২৪, নিজস্ব প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় ৩ বছর আগে আপন বোনকে ধর্ষণ চেষ্টা করায় মা-বাবার সহযোগিতায় মো. হাসানের (২০) পুরুষাঙ্গ কেটে ডোবায় মরদেহ ফেলে দেন ভুক্তভোগী বোন। ঘটনার ১৯ দিন পর লাশ উদ্ধার হলে এ ঘটনায় নিহত হাসানেরই আরেক ভাই প্রত্যক্ষদর্শী মো. হোসেন মা-বাবার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। বিচারিক কার্যক্রম শেষে আদালতে তাদের দোষ প্রমাণিত হয়।

এ ঘটনায় আজ রোববার দুপুর পৌনে ১ টার দিকে মুন্সিগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোতাহারাত আখতার ভুইয়া নিহত হাসানের মা হাসিনা বেগম (৩৮) ও বাবা শামিম শিকদারকে (৪০) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড ও অনাদায়ে আরও ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দি গ্রামের বাসিন্দা।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী মোজাফ্ফর আলী এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলার প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ২০২১ সালের ৮ জানুয়ারী সকালে গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী এলাকার শেখের বাড়িতে দণ্ডপ্রাপ্ত শামিম শিকদারের বাড়ির পিছনে ডোবায় নিহত মো. হাসানের অর্ধগলিত মরদেহ ভেসে উঠলে পুলিশ এসে উদ্ধার করে।

এর ১৯ দিন আগে ২০২০ সালের ২০ ডিসেম্বর রাতে অন্যান্য দিনের মত পরিবারের সদস্যদের সাথে পাশের কক্ষেই ঘুমিয়ে পড়েন নিহত হাসান। রাত গভীর হয়ে ৩টা বাজলে হাসানের বোন শিলা প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে উঠলে হাসান তাকে ডেকে নিজের রুমে নিয়ে যায়। এসময় শিলা হাসানের অসৎ উদ্দেশ্যর ব্যাপারটি বুঝতে পেরে চিৎকার দেয়। ঘটনাটি হাসানের আরেক ভাই হোসেন, তার মা হাসিনা বেগম ও বাবা শামিম শিকদার দেখে ফেলে।

পরে ক্ষিপ্ত হয়ে হাসিনা বেগম ও বাবা শামিম শিকদার হাসানকে খাটের উপর শুইয়ে বালিশ দিয়ে মুখ চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে। এসময় হাসানের মা ছেলের পা চেপে ধরে। ভুক্তভোগী বোন চাকু দিয়ে হাসানের পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলে। এতে হাসানের মৃত্যু হলে মরদেহটি বাড়ির পিছনে ডোবায় ফেলে কচুরীপানা দিয়ে ঢেকে রাখে।

পুলিশ ৮ জানুয়ারী লাশ উদ্ধারের পর হাসানেরই আরেক ভাই প্রত্যক্ষদর্শী হোসেন এ ঘটনায় গজারিয়া থানায় মা-বাবাকে আসামি করে ভাই হত্যার বিচারের দাবি নিয়ে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ নিহত হাসানের বাবা শামিম শিকদারকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করলে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। বিচারিক কার্যক্রম শেষে রোববার ছেলে হত্যার দায়ে মা হাসিনা বেগম (৩৮) ও বাবা শামিম শিকদারকে (৪০) যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেন আদালত।

error: দুঃখিত!