১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সোমবার | বিকাল ৪:১০
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
মুন্সিগঞ্জে নদীতে পাওয়া মরদেহটি এনবিআর কর্মকর্তার, বাসা থেকে বের হয়ে ছিলেন নিখোঁজ
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ২ মার্চ, ২০২৪, নিজস্ব প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

রাজধানীর মিরপুর থেকে নিখোঁজের ৪দিন পর এনবিআরের সহকারি পরিচালক কামাল হোসেনের মরদেহ মুন্সিগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে কচুরিপানায় আটকে থাকা অবস্থায় উদ্ধার করেছে নৌ পুলিশ।

প্রথমে সাথে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্রের সূত্র ধরে নাম-পরিচয় জানা যায়। পরে খবর দেওয়া হলে স্বজনরা এসে নিশ্চিত করেন মৃত কামাল হোসেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আগারগাঁও অফিসের সহকারি পরিচালক।

কামাল হোসেনের খালাতো ভাই মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

পরিবার জানায়, মৃত কামাল হোসেন ঢাকার মিরপুর ১০ নম্বর সেকশনের নিজ বসতবাড়ি থেকে বের হয়ে গেল ২৬ ফেব্রুয়ারি রাত থেকে নিখোঁজ ছিলেন। পরদিন তার মা সামসুন নাহার পল্লবী থানায় ছেলে নিখোঁজের জিডি করেন।

নিখোঁজের ৪দিন পর গতকাল শুক্রবার (১ মার্চ) দুপুরে মুন্সিগঞ্জ সদরের মালিরপাথরের কাছে ধলেশ্বরী নদীতে সেন্টু গেঞ্জি ও কালো প্যান্ট পরিহিত অবস্থায় কামাল হোসেনের মরদেহ উদ্ধার করে নৌ পুলিশ। এসময় মরদেহের পকেটে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্রের সূত্র ধরে পুলিশ ওই ব্যক্তির গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমারীর পশ্চিম কামারগ্রামে খবর পাঠায়। পরে তার বাবা আলী আফজাল রাতে মুন্সিগঞ্জে এসে ছেলের মরদেহ ও বিস্তারিত পরিচয় নৌ পুলিশকে জানান।

মুক্তারপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সাজ্জাদ করিম এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

মরদেহ নিতে আসা কামালের খালা লতিফা বেগম অভিযোগ করে জানান, কামাল হোসেন রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বর সেকশনে মা ও একমাত্র পুত্র সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন। প্রতিদিনের মত গেঞ্জি ও প্যান্ট পরে ২৬ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টায় বাসার পাশে হাঁটতে বের হন। কিন্তু রাত ১০ টায়ও বাসায় না ফেরায় তার মা সামসুন নাহার ছেলেবে ফোন করেন। কিন্তু তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর আর তার খোঁজ পাওয়া যায়নি। তার দাবি, কামাল হোসেনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যার পেছনে কোনও চক্র জড়িত থাকতে পারে। সরকারের রাজস্ব বাড়ানোর ক্ষেত্রে কামাল ভূমিকা রাখতেন। এসব কারণে অনেকের সাথে তার শত্রুতা রয়েছে। লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে, দাঁতও ভেঙে দেয়া হয়েছে। তার ধারণা, হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলে দেয় দৃবৃত্তরা।

মুক্তারপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সাজ্জাদ করিম খান বলেন, মরদেহ ময়নাতদন্ত হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে আরও তথ্য জানা যাবে। কামাল হোসেনের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, কামাল হোসেন ২৭ তম বিসিএস কর্মকর্তা। তিনি জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আগারগাঁও অফিসে সহকারি পরিচালকের দায়িত্বে ছিলেন।

error: দুঃখিত!