২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
সোমবার | রাত ৯:৪২
মুন্সিগঞ্জে ডাকাতির ঘটনাস্থল পরিদর্শন এমপি মৃণাল কান্তি দাসের
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, সদর প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার আধারা ইউনিয়নের চিতলিয়া বাজারে ডাকাতির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস।

গতকাল শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সদর উপজেলার চিতলিয়া বাজারে তিনি ডাকাতির শিকার ব্যবসায়ীদের বাসায় গিয়ে সহমর্মিতা জানান ও ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত চিন্থিত করে আইনের আওতায় আনার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আহবান জানান।

এসময় সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস বলেন, জনস্বার্থে প্রশাসনকে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আরও সতর্ক থাকতে হবে। সকল অশুভ শক্তিকে দমন করতে হবে। দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কল্যাণে সকলকে ভূমিকা রাখতে হবে।

আরও পড়তে পারেন: মুন্সিগঞ্জে নদীপথ ব্যবহার করে দুর্ধর্ষ ডাকাতি

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ‍মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক, মুন্সিগঞ্জ শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম মাহতাব উদ্দিন কল্লোল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আল মাহমুদ বাবু, জেলা যুব মহিলা লীগের আহবায়ক মোরশেদা বেগম লিপী, মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা, জেলা পরিষদের সদস্য আরিফুর রহমান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি গোলাম মাওলা তপন, জাতীয় শ্রমিক লীগ শিল্পায়ন আঞ্চলিক শাখার সভাপতি আবুল কাশেম, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপ আইন বিষয়ক সম্পাদক আপন দাস প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত বুধবার রাত আড়াইটার দিকে নদীপথে চিতলিয়া বাজারে আসে ১৮/২০ জন সদস্যের একদল ডাকাত। অস্ত্র দেখিয়ে প্রথমে তারা বাজারের দুই নৈশপহরী ও পরে বনিক স্বর্ণশিল্পালয় নামের দোকান ও সংলগ্ন বাড়ির লোকজনকে হাত-পা বেঁধে ফেলে। এসময় ডাকাত আসার খবর মসজিদে মাইকিং করা হয়। এরপরই স্বর্ণ ও টাকা নিয়ে নদীপথে পালিয়ে যান ডাকাত সদস্যরা। ডাকাতি শেষে নদীপথে পালিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ডাকাতরা বিস্ফোরক ছুড়ে মারে বলে পুলিশ দাবি করে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হলেও কাউকে সনাক্ত বা আটক করতে পারেনি পুলিশ।

error: দুঃখিত!