২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
মঙ্গলবার | সকাল ৬:৫৮
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
মুন্সিগঞ্জে ছোট ভাইয়ের হাত থেকে মা’কে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর আহত বড় ভাই
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১, বিশেষ প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জের টংগিবাড়ী উপজেলার খলাগাঁও গ্রামে ছোট ভাইয়ের মারধরের হাত থেকে মা কে বাঁচাতে গিয়ে আঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন বড় ভাই।

জানা যায়, আজ শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার পাঁচগাও ইউনিয়নের খলাগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, খলাগাঁও গ্রামের মৃত ইসলাম হালদারের স্ত্রী বৃদ্ধা নাজমা বেগম (৭৫) দীর্ঘদিন যাবত স্বামীর বাড়িতে তিন সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছেন।

নাজমা বেগম জানান, বড় ছেলে জাকির হালদার (৫০), মেঝো ছেলে বশির হালদার (৪৫) আমার ভরণ পোষণ করে থাকেন। কিন্তু ছোট ছেলে অলি হালদার (৩৫) আমার ভরণ পোষণ করে না। সে আমার ভরণ পোষণ না করে প্রায়শই আমাকে বকাঝকা ও মারধর করে। এর ধারাবাহিকতায় আজ শনিবার সকালে আমার ছোট ছেলে অলি ও তার স্ত্রী নুপুর ঝগড়ায় লিপ্ত হয়ে আমাকে মারতে আসে। আমাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে আমার বড় ছেলে জাকির হালদার ও বশির হালদারকে চাইনিজ কুড়াল, দা ও কাঠের ডাঁসা দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে প্রথমে টংগিবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে তারা আশঙ্কাজনক অবস্থায় আহত বশিরকে মুন্সিগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

নাজমা বেগমের বড় ছেলে জাকির হালদার জানান, আমার ছোট ভাই ও তার স্ত্রীর মারধরে আমার মেঝ ভাই এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। আমরা তাকে নিয়ে এখন ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি আছি।

বৃদ্ধা নাজমা বেগম কান্না জড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের জানান, আমি আমার ছোট সন্তানের যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ। তার ভয়ে আমি বাড়িতে থাকতে পারিনা। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত অলি হালদারের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে টংগিবাড়ী থানার এস আই মামুন জানান, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

error: দুঃখিত!