২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
মঙ্গলবার | সকাল ৭:৩৮
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
মুন্সিগঞ্জে এমপি মৃণালের কর্মসূচিতে দুই পক্ষের মারামারি, আহত দুইজন
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১২ নভেম্বর ২০২৩, নিজস্ব প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাসের সমর্থনে আয়োজিত শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশে এমপি অনুসারী পৌর কাউন্সিলর মকবুল হোসেন ও যুবলীগ নেতা জাহিদ হাসান সমর্থকদের মধ্যে মারামারি হয়েছে।

এসময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে যুবক মোহাম্মদ সজল (২২) গুরুতর আহত হয়েছেন। আরেক যুবক মোহাম্মদ রুবেল (৩৬) মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এরা দুজনে যুবলীগ নেতা ইউপি সদস্য জাহিদ হাসানের সমর্থক বলে জানা গেছে।

আজ রোববার বিকাল সাড়ে ৫ টার শহরের সুপারমার্কেটে অঙ্কুরিত যুদ্ধ ১৯৭১ ভাস্কর্যের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকালে সেচ্ছাসেবকলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ ৭টি সহযোগি সংগঠনের ব্যানারে বিএনপির নৈরাজ্যের প্রতিবাদ এবং শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ চলছিলো শহরের মুক্তিযুদ্ধ কমপ্লেক্স সংলগ্ন সড়কে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনেন সংসদ সদস্য এড. মৃণাল কান্তি দাস।

বক্তব্য চলাকালে হঠাৎ সমাবেশস্থলে ঢোকার সম্মুখভাগে সুপারমার্কেটে অঙ্কুরিত যুদ্ধ ১৯৭১ ভাস্কর্যের সামনে মারামারিতে জড়িয়ে পরে শহর সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মকবুল হোসেন ও পঞ্চসার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জাহিদ হাসানের সমর্থকরা। এসসময় জাহিদ সমর্থক সজলের শরীরের বিভিন্নস্থানে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে প্রতিপক্ষরা। আহত হয় রুবেল নামের আরেক কর্মী। পরে উপস্থিত নেতাকর্মীরা আহত সজলকে উদ্ধার করে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঢাকায় রেফার্ড করে।

এসময় বেশ কিছুক্ষণ ধরে সমাবেশস্থলে কর্মীদের মাঝে মারামারি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি চলতে থাকে। পরে অন্য নেতাকর্মীরা তাদের সরিয়ে দেয়।

মুন্সিগঞ্জ শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর মকবুল হোসেন জানান, হট্টগোল-মারামারি হয়েছে। তবে কারা, কিজন্য মারামারি করেছে তা নিশ্চিত না। আমি সমাবেশস্থলের সামনে ছিলাম, মারামারিকারিদের দেখিনি। একজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে বলে জেনেছি।

পঞ্চসার ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি জাহিদ হাসান জানান, এ ঘটনায় একজন গুরুতর আহতসহ তার তিন কর্মী আহত হয়েছে। মূলত চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে এই ঘটনা ঘটে।

মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের  জরুরী বিভাগের চিকিৎসক রুহুল আমিন জানান, আহত অবস্থায় দুইজন হাসপাতালে এসেছিলো। এর মধ্যে সজলের অবস্থা গুরুতর ছিল, তার মাথায় পিঠে এবং পায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিলো। এখান থেকে রক্তক্ষরণ বন্ধ করে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেলে রেফার্ড করা হয়েছে। অপর আহত রুবেলকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে ।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম জানান, দুটি উপদলীয় অন্ত:কোন্দলে ছুরিকাঘাতের ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় এখনো কোনপক্ষ থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।

error: দুঃখিত!