২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বৃহস্পতিবার | রাত ৯:৪৯
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি সুচিত্রা সেনের প্রয়াণ দিবস আজ
খবরটি শেয়ার করুন:

১৭ জানুয়ারি ২০২৪, ডেস্ক রিপোর্ট (আমার বিক্রমপুর)

বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেত্রী সুচিত্রা সেনের প্রয়াণ দিবস আজ। ২০১৪ সালের এইদিনে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন তিনি। ফুসফুসের সংক্রমণ নিয়ে ২৫ ডিসেম্বর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন সুচিত্রা। তখন কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠলেও শেষ পর্যন্ত মৃত্যুর কাছে হার মানতে হয় তাঁকে।

রূপ, লাবণ্য এবং অতুলনীয় অভিনয় দিয়ে কোটি হৃদয়ে আজও সমুজ্জ্বল সুচিত্রা সেন। বাংলা সিনেমাকে তিনি নিয়ে গেছেন এক অন্য উচ্চতায়। এখনো যাঁর হাসি ঝড় তোলে লাখো হৃদয়ে, সেই সুচিত্রা সেন মৃত্যুর আগে নিজেকে নিভৃতচারিণী করে রেখেছিলেন প্রায় ৩৬ বছর। এই দীর্ঘ সময়ে তাঁর সাক্ষাৎ তো দূরের কথা, দেখাটা পর্যন্ত পায়নি বাইরের কেউ।

পাবনার গণ্ডি পেরিয়ে অভিনয় গুণে সুচিত্রা সেন হয়ে উঠেছিলেন দুই বাংলার চলচ্চিত্রপ্রেমীদের মহানায়িকা। তার অনবদ্য অভিনয় এবং অপরূপ সৌন্দর্য আজও দাগ কেটে আছে কোটি দর্শকের হৃদয়ে।

সুচিত্রা সেনের প্রকৃত নাম রমা দাশগুপ্ত। ১৯৩১ সালের ৬ এপ্রিল বাংলাদেশের বৃহত্তর পাবনার সিরাজগঞ্জ মহকুমার ভাঙাবাড়ি গ্রামে নানাবাড়িতে তার জন্ম।

পাবনা শহরের বাড়িতে কেটেছে তার শৈশব-কৈশোর। বাবা করুণাময় দাশগুপ্ত ছিলেন স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। বাবা করুণাময় দাশগুপ্ত ও মা ইন্দিরা দেবীর পঞ্চম সন্তান ছিলেন সুচিত্রা সেন। তিন মেয়ের মধ্যে কনিষ্ঠ ছিলেন তিনি। তবে ১৯৪৭ সালে দেশভাগের আগে পরিবারের সঙ্গে কলকাতায় চলে যান তিনি।

বড় পর্দায় সুচিত্রার যাত্রা শুরু হয় ১৯৫২ সালে। সব মিলিয়ে ৬০টি সিনেমায় তিনি অভিনয় করেছেন। এর মধ্যে বাংলা ৫৩টি এবং হিন্দি ভাষার ৭টি সিনেমায় তাকে দেখা গেছে।

২০১৪ সালে সুচিত্রা সেনের মৃত্যুর পর ১৬ জুলাই তাঁর পাবনার আদি বাড়িতে সংগ্রহশালা নির্মাণের আদেশ দেন বাংলাদেশের আদালত। এরপর সেখানে তৈরি হয় সংগ্রহশালা। এখনো বাঙালির জীবনের সঙ্গে নানাভাবেই জড়িয়ে আছেন সুচিত্রা সেন। তাঁর স্টাইল, ফ্যাশন সেন্স এবং গ্ল্যামার নিয়ে আজও সমানভাবে চর্চা হয়। এ সময়ের নায়িকারাও অনুসরণ করেন তাঁকে।

error: দুঃখিত!