১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
শনিবার | দুপুর ২:৩৬
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
বর্ষার শেষেই শুরু হচ্ছে মুন্সিগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধের সংস্কার কাজ
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১৫ জুলাই, ২০২০, আরাফাত রায়হান সাকিব (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জে মাঝারি সমন্বিত বন্যা প্রতিরোধ প্রকল্পের আওতায় ৩৬কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত ৩ কি.মি. শহর রক্ষা বাঁধটি র্দীঘদিন সংস্কার অবহেলায় থাকলেও এবার তা সংস্কারের উদ্দ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এর অংশ হিসাবে তৈরি করা হয়েছে ব্লক। বর্ষা শেষেই শহর রক্ষা বাঁধের সংস্কার কাজ শুরু হচ্ছে বলে পানি উন্নয়ন র্বোড সূত্রে জানা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের পরিচালনা ও রক্ষনাবেক্ষণ বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী টিএম রশিদুল কবীর।

তিনি জানান, ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে মুন্সিগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধের সংস্কারের জন্য ৪২লক্ষ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। প্রথম পর্যায়ে বাঁধের মুন্সিগঞ্জ লঞ্চঘাট এলাকার ১২৫মিটার অংশ সংস্কার করা হবে। সংস্কারের জন্য ব্লক তৈরি করে আনা হয়েছে। এবছরই কাজ করা হতো, তবে করোনা পরিস্থিতি ও বর্ষায় পানি অনেক হওয়ায় বেশি পানির মধ্যে কাজ করা যাবে না। বর্ষার শেষে শহর রক্ষা বাঁধের কাজ শুরু হবে।

তিনি আরো জানান, পুরো বাঁধ এখন সংস্কার হচ্ছে না, লঞ্চঘাট এলাকার অংশটি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ তাই এ অংশটি সংস্কার করা হচ্ছে। এখানে নৌযান অবৈধ নোঙরের কারণে বাঁধ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ব্লক তৈরি হয়ে গেছে ২০২০-২১অর্থ বছরে প্রাপ্ত বরাদ্দের অর্থে ব্লক বসানোর টেকনিক্যাল কাজ শুরু হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের অর্থায়নে ২০০৬-০৭ অর্থবছরে সমন্বিত বণ্যা প্রতিরোধ প্রকল্পের আওয়তায় ২৭কি.মি. শহর রক্ষা বাঁধটির নির্মান কাজ শুরু হয়। বাঁধটি ৬টি ভাগে ভাগ করে কাজ শুরু হয়। প্রথম অংশের হাটলক্ষীগঞ্জ থেকে রিকাবিবাজার পর্যন্ত অংশে কাজ শেষ হলে জমি অধিগ্রহন সমস্য ও দূর্নীতির অভিযোগ উঠলে অর্থদাতা প্রতিষ্ঠান অর্থায়ন বন্ধ করে দেয়।

তবে নির্মিত ৩ কিলোমিটার বাধটি এরপর আর সংস্কার করা হয়নি। এতে শহরের হাটলক্ষ্মীগঞ্জ থেকে রিকাবীবাজার পর্যন্ত ৩কিলোমিটার বাঁধটিতে ৫০টির বেশি অংশে ব্লক খসে পরে ক্ষতের সৃষ্টি হয়। হুমকিতে পরে বাঁধ সংলগ্ন এলাকার জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা সহ বিভিন্ন স্থাপনা ।

error: দুঃখিত!