২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
শনিবার | সকাল ৭:০১
পরকীয়া সন্দেহেই স্বামীর গলা কাটেন স্ত্রী আকলিমা, মামলা দায়ের
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ১৭ জুলাই, ২০২১, সদর প্রতিনিধি (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার পূর্ব শীলমন্দি এলাকায় স্বামীর পরকীয়া সন্দেহে ও নির্যাতন সইতে না পেরে রমজান মাসে সেহরীর সাথে ঘুমের ঔষুধ খাইয়ে অচেতন করে ধারালো ছুড়ি দিয়ে স্বামী আরাফাত মোল্লা (৫০) কে হত্যা করার পর নিজ ঘরের রান্নাঘরে পুতে রেখেছিলেন স্ত্রী আকলিমা বেগম (৩৫) ও তার অপর সহযোগী রিয়াজ (২৪)।

এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার (১৬ জুলাই) পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন আকলিমা বেগম। পরে রাত ৮টা’র দিকে পুলিশ রান্নাঘরের মেঝে থেকে লাশের অংশবিশেষ উদ্ধার করে। এছাড়া স্ত্রী আকলিমা বেগম (৩৫) সহ রিয়াজ (২৪) নামের এক সহযোগীকে আটক করে।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক এ ঘটনায় মূল অভিযুক্ত আকলিমা বেগমের পুলিশকে দেয়া প্রাথমিক স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে এসব তথ্য গণমাধ্যমে জানান।

এ ঘটনায় আজ শনিবার (১৭ জুলাই) পূর্বের অপহরণ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বাদী হয়ে মুন্সিগঞ্জ সদর থানায় আটক দুইজনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

স্ত্রী’র হাতে হত্যাকান্ডের স্বীকার আরাফাত মোল্লা (৫০) পূর্ব শিলমন্দি এলাকার মৃত দুখাই মোল্লার ছেলে। তার পরিবারে দু্ই ছেলে ও দু্ই মেয়ে রয়েছে।

ওসি জানান, চলতি বছরের ৩০ মে থেকে আরাফাত মোল্লা নিখোঁজ ছিলেন। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আকলিমা বেগম বাদি হয়ে মুন্সিগঞ্জ সদর থানায় রুহুল নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগও দিয়েছিলেন। তদন্তের একপর্যায় শুক্রবার সকালে আকলিমার সঙ্গে এক প্রতিবেশীর কথোপকথনের ভিডিও পুলিশের হাতে আসে।

পুলিশের হাতে আসা ভিডিওতে দেখা যায়, আকলিমাই আরাফাতকে হত্যা করে ঘরের পাশের রান্নাঘরে পুঁতে রাখার বিষয়টি বলছেন প্রতিবেশীর কাছে। পরে বেলা ১১টার দিকে আকলিমাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরকীয়াকে কেন্দ্র করে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে ধারালো ছুড়ি দিয়ে দ্বিখন্ডিত করে স্বামীকে হত্যা করেছেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেন। পরে আকলিমাকে ঘটনাস্থলে নেয়া হলে পুলিশকে মরদেহ পুঁতে রাখার স্থান দেখিয়ে দেন তিনি।

error: দুঃখিত!