১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
মঙ্গলবার | সকাল ৬:১৯
Search
Close this search box.
Search
Close this search box.
উত্তেজনা থামেনি, মোল্লাকান্দি যেন বিচ্ছিন্ন এলাকা
খবরটি শেয়ার করুন:

মুন্সিগঞ্জ, ৭ ফেব্রুয়ারি, শিহাব আহমেদ ২০২৩, (আমার বিক্রমপুর)

মুন্সিগঞ্জ সদরের মোল্লাকান্দিতে ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান রিপন হোসেন ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনার সমর্থক দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এসময় ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও মুদি সদাই দোকান লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। উভয়পক্ষের গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।

রাত ৯টা’য় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দুই পক্ষের মুখোমুখি অবস্থান রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধরা হলেন, পরাণ মোল্লা (১২), সুমন মোল্লা (১৮) ও মো. ফারুক হোসেন (৩০)। এছাড়াও আহত জনি (২৫), রাসেল (২৮), পারভেজ (২৭), শরীফ (২৮), নীরব (২৪) ও সোহেলসহ (২৫) বাকিরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টা’র দিকে ইউনিয়নের ঢালিকান্দি এলাকায় নদীতে গোসল করতে গেলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা সমর্থক আজিজসহ কয়েকজন পূর্ব বিরোধের জের ধরে ইউপি চেয়ারম্যান রিপন হোসেন সমর্থক স্থানীয় জাহাঙ্গীরের ছেলে জনির উপর হামলা করে। পরে এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে সংঘর্ষটি দুই পক্ষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এসময় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা সমর্থক সমরউদ্দিন মালের বাড়িঘর ভাঙচুর ও আবুল কাশেম সরকারের দোকান ভাঙচুর ও লুটপাট করে ইউপি চেয়ারম্যান রিপন হোসেন সমর্থকরা। এরপর থেকে ককটেল ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে স্থানীয় কৃষি ক্ষেতে মুখোমুখি অবস্থান নেয় দুই পক্ষ। এসময় দফায় দফায় উভয়পক্ষকে লক্ষ্য করে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় দুই পক্ষের লোকজন। মহড়া দিতে দেখা যায় উন্নতমানের আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে। সকাল ১১টা’র সংঘর্ষ সন্ধ্যা পর্যন্ত এভাবেই চলতে থাকে। মাঝে দুপুর ১টা’র দিকে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলেও তারা পরে পিছু হটে।

সন্ধ্যার পর ৭টা’র দিকে উত্তর বেহেরকান্দি এলাকায় মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী সদস্য ডলি বেগমের বাড়িঘর ভাঙচুর করে মহসিনা হক কল্পনা সমর্থকরা।

সন্ধ্যা পেরিয়ে রাতেও ককটেল, দেশী-বিদেশী আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে মহড়া অব্যাহত রেখেছে মুন্সিকান্দি, ঢালীকান্দি, বেহেরকান্দি নোয়াদ্দা ও লক্ষ্মীদিবি এলাকার দুই পক্ষের লোকজন।

মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক শৈবাল বসাক জানান, আহতদের মধ্যে পরাণ ও সুমন নামে দুই ব্যক্তির চোখসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছররা ‍গুলি ও স্প্লিন্টারের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী সদস্য ডলি বেগম অভিযোগ করে বলেন, ইউনিয়নটির সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা সমর্থক মুন্সিকান্দি এলাকার শওকত দেওয়ান, বাবু কাজি ও দরবার লোকজন নিয়ে অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আমার বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুট করে।

শওকত দেওয়ান অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মোল্লাকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান রিপন হোসেনের ভাই শিপন পাটোয়ারি অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে অতর্কিতভাবে লোকজন নিয়ে আমাদের এলাকায় হামলা করে বাড়িঘর ও দোকান ভাঙচুর-লুট করে।

অভিযোগের বিষয়ে শিপন পাটোয়ারি বলেন, বাড়িঘর, দোকান ভাঙচুর ও লুটের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। ঘটনার সময় আমি মুন্সিগঞ্জ শহরে ছিলাম। সন্ধ্যার দিকে কল্পনা সমর্থক শওকত দেওয়ান লোকজন নিয়ে আমাদের পক্ষের বেহেরকান্দি এলাকার ডলি মেম্বার, মুন্সিকান্দি এলাকার শহিদুল ও মজনু সরকারের ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে।

মুন্সিগঞ্জ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থান্দার খায়রুল হাসান জানান, সকালে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। দুই পক্ষ এখনো মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঐ এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা রয়েছে। জড়িতদের গ্রেপ্তার ও ব্যবহৃত অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধারে শীঘ্রই অভিযান পরিচালনা করা হবে।

error: দুঃখিত!